প্রথম সফটওয়্যার

মোটামুটি প্রথম এক বছর ড্রীম উইভারের সকল কাজ হাতে কলমেই চলত। ইভেন্টের চাপ বাড়ার সাথে সাথে যোবায়ের শুভর মাথায় কাজ করতে থাকল, এই যে এত ক্লায়েন্ট তাদের, একটা পূর্ণাঙ্গ সফটওয়্যার এবং ওয়েবসাইট বানিয়ে নিলে ক্লায়েন্টদেরও যেমন সুবিধা, ড্রীম উইভারেরও সুবিধা। কেননা এতে করে, সম্পূর্ণ ‘অটোমেটেড’ পদ্ধতিতে চালনা করা সম্ভব হবে তাদের ক্লায়েন্ট ডিলিংস এর কার্যক্রম। ২০১৩ এর শেষের দিকে ঢাকার বাইরে ঠাকুরগাওতে ড্রীম উইভার যায় একটি ইভেন্ট করার জন্য। ইভেন্ট ছিল বহুজাতিক এক প্রতিষ্ঠানের আইটিতে চাকুরীরত নুর ভাই এর। শুভ তার কাছেই শুনতে চান বিস্তারিত। সফটওয়ার বানাতে যেয়ে করণীয় কী কী? পরবর্তীতে সেই ভাইই একটা ডেমো মডেল বানিয়ে দেন। সেখান থেকে ধীরে ধীরে প্রয়োজনের সাপেক্ষে আধুনিকীকরণ হতে হতে বর্তমানে ড্রীম উইভারের সফটওয়্যার সবথেকে অত্যাধুনিক একটি সফটওয়্যারে পরিণত হয়েছে।