Story of Dreamweaver

Those days of weaving dreams!!!!!

It was just before the shoot in Pabna when it crossed their mind that, they need an identity of the unnamed group and even a visiting card that could play a significant role in enhancing some publicity of the group. It was on the list of Nafis to design the logo and visiting card on the account of his primary knowledge in software. But the foremost difficult they faced upon was a name that they had to give to their dream. Out of the array of names everyone came up with, not a single could grasp to their liking. Despite of the event being 2 days later, they were still dubious with the single question, “What shall be the name of our group?” The story of Einstein getting the clue to his unsolved puzzle while in washroom is known to everyone. Nafis turned out to be the Einstein of this plot when the name of name of a designing software as ‘Dream Weaver’ popped out of his head. Overwhelmed with the name, he found the match of how people weave their strings of wedding dream moments throughout life. During these special moments, they cultivate their desire to live the entire life with their special counterpart forever. It took only an instant to amaze everyone with the amazing concept that harmonizes their ideals of weaving the memories of people. The group finally had a name of their dream- Dream Weaver.

It took no time for Nafis Fuad Shuvo to realize his expertise in photography during his early days in IUT. However, the name of Photographic society or IUTPS was not yet prominently audible in the campus at those times. But when IUTPS made a strong mark of its presence there, his presence there had also escalated. Unfortunately, it was only a Compact Digital Camera to accompany his talent in photography then. Following the trails of few seniors and close friend Imran Sahed, he made up his mind in buying the weapon of his desire, a DSLR camera. It was during the end of 2011, when Shuvo and Imran went outside on numerous ocassions in pursuit of their desired photography. And obviously as the subject of photogaphy could not be any better other than the campus of IUT. It was of that time, when wedding photography had started evolving. Even the news of some seniors managing their primary expenses swiftly was often eared in the campus. Out of those seniors, they (Nafis and Imran) chose Jobayer Hossain Shuvo for the sole reason of his inspiring attitude towards photography and perseverance towards showing others ways to improve without any criticism. They also observed the presence of relentless creativity in his works which impelled them to continuously seek the privilege of working with him. It was an incident of January 2012 when the desire intensified in Nafis and Imran when they saw a junior of them going out with Jobayer Shuvo for making out some cash through wedding photography. It also crossed their mind that, a boy younger of their age managed successfully to impress Shuvo. And this young boy goes by the name of Mazharul Islam Rafi. This indulged a constant creed in them to go out someday with their senior Shuvo for a wedding shoot. Finally when they got the chance in a wedding shoot, they did not fail to meet the expectations of Shuvo. Those incidents led to many occasions when the three went out with Jobayer Shuvo for photography. It was on one night in March when the idea of opening a photography group struck their mind. The idea turned into a concept in reality as the desire of photography was not a bit deficient in any of them and it could not be any better if the desire could be turned into profession. Despite working with many others, the passion and works of these three left a strong mark in JHS that it left no doubt in himself to respond to their thought. In that night of March, the trail of a new journey started for the name, Dream Weaver, with JHS leading the group with Nafis, Imran and Rafi. Just after 2 days, JHS received the call for the task of shooting the wedding of his senior and lecturer of IUT, Mr. Rezwan, in Pabna. The event was on 29th March and indeed the first shoot of Dream Weaver that just took its birth.

A Paratha with Dalvaji, Coke and a packet of Benson and Hedges was the sole reward for designing the logo that they had then. It was in April 2012 when a friend of Jobayer Shuvo, named Nazmus Sakib designed the logo. Like Shuvo and others, many people have recalled his name at numerous times for different works due to his skills in software. Those Paratha and Dalvaji of café will suffice the inspiration in Sakib to contribute to their new work.
Who knew, that concept in the verge of gaining its existence would evolve into a masterpiece of today!

It was the eve of Bangla New Year of 2012 when the four planned with their friends and clients for a photoshoot at the Dhaka University campus. With the task of photography done, they faced with the dilemma of ways to send the photographers to those people. Just with the tinkering of the confusion, they came up with the idea of opening up a Facebook page. Deciding to upload the captured photographs of the four, they also found out a window to showcase the photographs of different weddings or events. Simultaneously, it seemed an impeccable exposure media to express their skills to the world. Without further ado and prompt implication of their idea, they opened a Facebook page of Dream Weaver on that very night. Being enriched with mesmerizing photographs from multitude of perspectives, the Facebook page of Dream Weaver has a count of almost 0.85 million followers and comparable number of Likes.

It was all about the story of 4 students when they resided in the halls of IUT and hence could not deal with clients as official propaganda. Jobayer Shuvo shifted to a new house in Uttara with two of his friends back in 2012 after graduation. They already had started receiving offers for events but was in desperate need of an office to have a conversation and advance payment from the clients. That indulged the thought of having an office of their own despite having a limited capital to do so. Out of all ways, they decorated the living room of their rented house as the small office of Dream Weaver. As the only furniture to enhance the decorum of their office, they had a newly bought table and chair from Navana accompanied by some of their masterpieces in frames. As the number of clients kept increasing with time, they was in need of a bigger office. With Nafis and Imran getting completing graduation, finally they were successful in finding a duplex building at Uttara. Overcoming all the barriers of reluctance to giving rent to bachelors and that too for an office or photographic studio, Dream Weaver had finally an address of its own- Uttara, Sector-9, Road No.1, House No.-23.

The first year of Dream Weaver was all about works in paper. With an ever-increasing number of events and clients, Jobayer Shuvo came up with the concept of a developed software and website that would facilitate Dream weaver and its clients at the same time. Simultaneously, this would ensure a complete ‘automated’ procedure in dealing with its customers. It was at the end of 2013 when the team of Dream Weaver visited Thakurgaon to cover an event of Mr. Nur. Mr. Nur, who was employed in a multinational IT institute was the apt person for Shuvo to have an idea building a software. Later, Mr. Nur had prepared a demo model of the software which has gradually evolved into one of the most developed software of today.

Fantastic FOUR

The four musketeers of Dream Weaver are Zubaer Hossain Shuvo, Nasif Fuad Shuvo, Imran Shahed and Mazharul Islam Rafi who share a common ground of all being engineers from IUT. The description of their journey seems to resonate in the description of each one of them.

At the end of the sophomore year in IUT, Jobayer Shuvo and his friends decided to explore Coxs’ Bazar. While it had been their utmost desire to shoot at the perfect time when none of their feet was touching the ground but achieving the success of a synchronized jump was getting difficult for them. With a Sony Cyber Shot Digital Camera, as their only available weapon at that time, after several failed attempts by many of his friends, Jobayer Shuvo was the one to get the picture perfect shot This masterpiece made its place as the cover photo of each and every one of his friends’ respective Facebook profile with the photo courtesy – Jobayer Hossain Shuvo. From that moment, he gained a nickname of ‘photographer’.
Jobayer Hossain Shuvo is the protagonist of Dream Weaver. His journey as a photographer started back in his childhood days in Comilla although it did not see the light until his life in IUT. His first camera, an auto roller Yasica camera was gifted by his father which made him walk from alley to alley to capture moments.
In 2011, peer pressure influenced a desire in him to buy a DSLR but his family would not permit it, so he decided to spend the remuneration that he earned from tutoring. His first DSLR was D7000 along with 18-105 lens, 35mm lens and a flash. Simply buying a camera did not satisfy him, to emulate himself in photography he would watch the tutorials from youtube to learn different functions of the camera and lens. In the meantime, he would take snaps in and outside the campus. One of his photos from Banani overbridge gained its position on an international inter university exhibition ‘Break the Circle’ in 2011. An year later, his another work was also exhibited there.
In his final year in IUT, he wanted to create an album consisting portraits of all the individuals of his batch. Everyone was awestruck by his level of creativity, they knew he was different, he had what it takes to be a photographer. Thereby his friend Tanjib offered him to cover his sisters’ wedding. From teachers to seniors to friends, his demand as a photographer kept thriving on that time.
When it came to weddings, covering the whole program single handedly was difficult so he would take others along with him. Sometimes a friend or a junior would accompany him but among them Rafi, Nafis and Imran excelled. This is the story behind the inception of the platform of Dream Weaver.
Jobayer Hossain Shuvo was brought up in Comilla, He completed his SSC from Comilla Zila School and was later admitted in Notre Dame College. He completed his bachelor’s degree in Mechanical Engineering from IUT.

Once while visiting his maternal village, he found a kitten lying on a branch. It was silent while it gawked at him with big round glistening eyes. He presented the photo to the seniors of the photographic society in IUT which was then marked exceptional and was selected for intra university exhibition. A senior even named the photo ‘Majestic Look’, that was when he was inspired and encouraged in photographing.
In his childhood, his family owned a Yasica camera, which had grasped an enormous amount of his time then. In his college life, he had a Nokia N70 phone which had only 2 megapixel camera, but took a great pride in taking photos with that. After entering into the university with a ceaseless desire to buy a digital camera, he bought his first digital camera is own savings and donation from his mother. “Majestic Look” is one of its’ production.
His love for photography got magnified in IUT. Getting awestruck by the mesmerizing photos in facebook and flickr, it was high time to buy a DSLR when he found his simple digital camera unaccustomed to take such snaps. One of his close friends, Imran already had a DSLR which further increased his thirst for DSLR. In January 2012, along with his own savings from scholarships and allowance from his family he bought his desired DSLR. He never had to look back after that as he used to work in IUTs’ photographic society and that is where he met Jobayer Shuvo. Nafis Fuad Shuvo aka NFS started making his place in this Dream Weaver platform.
Nafis grew up in Khulna, studied in Khulna Zilla School and completed his HSC from Rajuk Uttara Model School. He completed his graduation on mechanical engineering.

During his college life, he bought Sony K750 from his savings of Eid and allowance from his family. His phone allowed him to take great photographs which also had scope for experimenting and editing. His aspiration for photography started from here. When his classes started in IUT, he joined the photographic society which further inspired him.
By the time he was in second year, he saved an amount of BDT 30,000 which he used along with a few grand from his family to buy a DSLR, Nikon D90, 18-105 lens. At most of the nights he along with his friends and seniors would roam around the campus for photowalk. Amidst the sodium light, his confidence pinnacled.
By this time, his friend Nafis had also bought DSLR and built the empire of Dream Weaver together with Jobayer Shuvo.
Imran was born and brought up in Chittagong. His school life was spent in Ispahani Public School while his college was Chittagong College. He also graduated from mechanical engineering in IUT.

Last but not the least, the youngest among the four is Mazharul Islam Rafi. After completing his SSC, he was given an orange colored Canon Digital camera which made his fascination for photography flared.
After completing his HSC in 2010, he got admitted in IUT. One day he showed a few of his snaps to a senior in order to display his photos for the upcoming photo exhibition “Break the Circle”. A senior asked him to edit one of his street photos and submit for the exhibition which left everyone spellbound to see the creation of this first year student being selected for display.
In 2011, he toured Sylhet with his friends where he captured a railway with his digital camera which was later displayed in the esteemed TTL (Through The Lens) exhibition in Bangladesh in 2012. He was then spotted by his seniors.
Inspired by his seniors in photography, he asked for a DSLR from his family. Scholarships of HSC, remuneration from tutoring in Udvash accompanied by grant from his family financed his first DSLR Nikon D5000 in 2011.
In January 18th 2012, Jobayer Shuvo took him to Four Seasons to cover a wedding shoot. With not a single normal flash of his own then, a few random shots that he took, left Jobayer Shuvo enthralled.
One of the biggest setbacks for Rafi was losing his camera the very next day in Bashundhara City while buying one for his friend. Having no other alternatives, he withdrew all his IUTs’ scholarship money and bought a new DSLR Canon D550.
In a night of March in the same year, he received a phone call where the voice exclaimed, “We are planning for a photographer team, are you in or not?” asked Jobayer Shuvo. A call from Shuvo bhai needed no second thought. He replied ‘yes’ obligingly. In the beginning, his Facebook Id bore the name ‘Rough Rafi’, till today he is called by this name around here in Dream Weaver.
Rafi grew up in Chittagong. He completed his SSC from Chittagong Collegiate School with HSC from Muhsin College. He completed his bachelor’s degree in Computer Engineering.

সেই স্বপ্ন বুননের দিনগুলি!

পাবনাতে যখন শ্যুট করতে যাবেন তার আগ দিয়ে সবার মাথায় কাজ করল, আচ্ছা গ্রুপ নাহয় হল, কিন্তু যেয়ে পরিচয়টা কী দিব! একটা নাম তো ঠিক করা লাগে। সাথে নিজেদের একটা ভিজিটিং কার্ড যদি নিয়ে যাওয়া যায়, তাহলে কিছুটা প্রচারণাও করা যেত। সফটওয়্যারে টুকটাক কাজ পারার দরুন দায়িত্ব পড়ল নাফিসের ঘাড়ে। লোগো বানিয়ে ভিজিটিং কার্ড বানাতে হবে। মুসিবত হল – নামটা তো আগে ঠিক করতে হবে, তারপর না হয় লোগো আর ভিজিটিং কার্ড। একেকজন একেক নাম নিবেদন করলেও সবার কেন জানি পছন্দ হচ্ছিল না। কী দেওয়া যায় সেই নাম? ইভেন্ট মার্চ এর ২৯। অথচ ঠিক তার দুদিন আগেও নাম খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। আইনস্টাইনের বেশ কিছু গল্প প্রচলিত আছে। যাবতীয় আবিষ্কার নাকি তিনি বাথরুমে বসে চিন্তা করার সময় তার মাথায় আসত। শেষতক এখানে নাফিস আবির্ভূত হলেন সেই আইনস্টাইন হিসেবে। বাথরুমে বসে চিন্তা করতে করতেই তার মাথায় আসে একটা ওয়েব ডিজাইনিং সফটওয়্যার এর নাম ‘ড্রীম উইভার’! বাহ সুন্দর তো। সবাই ই তো তাদের বিয়ের মুহুর্তগুলির জন্য আজন্ম স্বপ্ন বুনে থাকে। আর সেই বিশেষ মুহুর্তগুলিতে স্বপ্ন বুনতে থাকে আর একটা মানুষের সাথে আজীবন একসাথে থাকার। তাহলে তাদের সেই স্বপ্ন বুনে রাখার স্মৃতিগুলোই আমরা ধরে রাখি! কনসেপ্ট দারুণ। একবাক্যে পছন্দ হয়ে গেল বাকি সবার। নাম ঠিক হয়ে গেল তরুণ চারজনের এই গ্রুপের – ড্রীম উইভার। াজ করিয়ে নিয়েছিলেন। শুভরাও তাই। নতুন কাজ শুরু করছেন তারা, সাকিবের কাছে তাদের জন্য লোগো বানিয়ে দিতে তো ক্যাফের পরোটা আর ডালভাজিই অনেক! কে জানত সেই ড্রীম উইভার আজ এতটা বড় হবে!

ছবি তোলার হাতটা যে খুব একটা খারাপ না সেটা প্রথম আইইউটিতে যেয়ে বুঝতে পারেন নাফিস ফুয়াদ শুভ। তবে আইইউটিতে সেই ২০০৯-১০ সালের দিকে ফটোগ্রাফিক সোসাইটি বা আইইউটিপিএস অতটা জনপ্রিয় ছিল না। বছরখানেক বাদে আইইউটিপিএস পূর্ণাঙ্গ রূপ পেলে যাওয়া আসা শুরু হয় সেখানে। দুর্ভাগ্য তখন তার হাতিয়ার হিসেবে ছিল তৎকালীন কমপ্যাক্ট ডিজিটাল ক্যামেরা। সিনিয়র কয়েকজন বড়ভাই এবং খুব কাছের বন্ধু ইমরান শাহেদ এর দেখাদেখি কিনে ফেলেন শখের ডিএসএলআর ক্যামেরা। সময়কালটা ২০১১ এর শেষের দিকে। প্রায় সময়ই তিনি আর ইমরান বের হয়ে যেতেন তাদের ক্যামেরা নিয়ে, তাদের শখের ফটোগ্রাফি করার জন্য। আর ফটোগ্রাফির বিষয়বস্তু হিসেবে তো আইইউটির ক্যাম্পাস এর থেকে ভাল কিছু হওয়া সম্ভব না। ততদিনে ওয়েডিং ফটোগ্রাফির হাক ডাক কমবেশি শুরু হয়েছে। বেশ কিছু সিনিয়রও তৎকালীন সময়ে ওয়েডিং এ যেয়ে ‘ক্ষ্যাপ’ মেরে কমবেশি হাতখরচ চালাচ্ছেন এমন কাহিনীও ক্যাম্পাসে রটে যায়। এরকম বেশ কজন সিনিয়রদের মাঝেই তারা খুঁজে নিলেন যোবায়ের হোসেন শুভকে। কারণ ছিল এক, এই মানুষটা ছবি তোলার জন্য আর একজনকে অনুপ্রাণিত করতেন সর্বদা এবং কখনো কারো ছবি নিয়ে সরাসরি সমালোচনা না করে বরং ধরে ধরে শিখিয়ে দিতেন কোথায় আরও কী কাজ করলে ছবিটা ভাল আসত, আর দ্বিতীয় কারণ, যোবায়ের শুভ’র তোলা ছবিগুলি সবথেকে বেশি ক্রিয়েটিভ লাগত তাদের কাছে। আর একারণেই কিনা তারা সবসময় চেষ্টা করতেন তারা যোবায়ের শুভ’র কাছ থেকে নতুন কিছু শেখার, তার সাথে কাজ করার সুযোগ পাবার। ২০১২ এর জানুয়ারি মাসের ঘটনা। আগ্রহটা নাফিস আর ইমরানের মনে আরো জাকিয়ে বসে, যখন তারা দেখেন যোবায়ের শুভ তাদেরও এক বছরের জুনিয়র এক ছেলেকে নিয়ে যাচ্ছেন সেই তথাকথিত ‘ক্ষ্যাপ’ মারতে অর্থাৎ কোন এক ওয়েডিং এ ফটোগ্রাফির কাজে। কিছুটা অবাকও হলেন। ছোট্ট ছেলেটা এসে শুভ ভাইকে আগে ‘ইমপ্রেস’ করে ফেলল!! এই জুনিয়র ছেলেটির নামই হল মাযহারুল ইসলাম রাফি। তারপর থেকে যোবায়ের শুভ’র কাছে ইমরান আর নাফিস এরও খানিকটা গো ধরেই বসে থাকা। তারাও একদিন যাবে ওয়েডিং শ্যুট করতে। শুভ হতাশ করলেন না। নিয়ে গেলেন একদিন তাদের। ফলাফল যোবায়ের শুভকেও হতাশ করেন নি নাফিস আর ইমরান। এরপর থেকেই টুকটাক যোবায়ের শুভর সাথে বাকি তিনজনের উঠাবসা, ছবি তুলতে যাওয়া। এভাবে চলতে চলতেই চারজন মিলে মার্চের এক রাতে বসে চিন্তা করে ফেলেন, নিজেরা মিলে একটা ফটোগ্রাফি গ্রুপ করে ফেললে কেমন হয়? ভাবনাটা আসে সেখান থেকেই। ছবি তোলার প্রতি আগ্রহটা কারোরই তো কম না। এই আগ্রহটাকে কাজে লাগিয়ে পেশায় রূপান্তর করা যায় যদি! যোবায়ের শুভও চিন্তা করলেন, অনেককে নিয়েই ছবি তুললাম, তবে এই তিন জুনিয়র তাদের মধ্যে সবথেকে ভাল কাজ করল, আগ্রহ দেখাল! তিনিও সাই দিলেন নির্দ্বিধায়। মার্চের ঐ রাত থেকেই শুরু হয়ে গেল ড্রীম উইভারের পথচলা। যোবায়ের শুভ প্রধান চালক, সাথে থাকবেন নাফিস, ইমরান এবং রাফি। তার দুদিন বাদেই শুভ’র কাছে ফোন এল – ডিপার্টমেন্টের বড় ভাই এবং তৎকালীন আইইউটির লেকচারার রেজওয়ান ভাই এর। তার বিয়ের প্রোগ্রাম পাবনাতে। মার্চ এর ২৯! শ্যুট করতে হবে। এই টেট্রার একটা গ্রুপ হবার পর প্রথম শ্যুট! আনুষ্ঠানিকভাবে ড্রীম উইভারের প্রথম শ্যুট।

একটা পরোটা, একটা ডালভাজি, কোক, আর সাথে এক প্যাকেট বেনসন সিগারেট। এই ছিল ড্রীম উইভার এর বর্তমান যে লোগো ব্যবহৃত হচ্ছে তা বানাবার পারিশ্রমিক। ২০১২ এর এপ্রিলে বানিয়ে দিয়েছিলেন যোবায়ের শুভ’র বন্ধু নাজমুস সাকিব। সফটওয়্যার এর কাজ ভাল পারেন বলেই কিনা, কম বেশি অনেকেই অনেক সময় তার কাছ থেকে বিভিন্ন কাজ করিয়ে নিয়েছিলেন। শুভরাও তাই। নতুন কাজ শুরু করছেন তারা, সাকিবের কাছে তাদের জন্য লোগো বানিয়ে দিতে তো ক্যাফের পরোটা আর ডালভাজিই অনেক! কে জানত সেই ড্রীম উইভার আজ এতটা বড় হবে!

২০১২ এর পহেলা বৈশাখের আগের সন্ধ্যা। চারজন মিলে ঠিক করে ফেলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় তাদের ক্লায়েন্ট সহ পরিচিত বন্ধু বান্ধব যারা আছেন সকলের ফটোশ্যুট করবেন এদিন। ফটোশ্যুট নাহয় করলেন, তবে ছবিগুলি মানুষের কাছে পৌঁছানো তো দরকার। উপায় কী? তখন মাথায় কাজ করল, একটা ফেসবুক পেজ খুলে ফেললে কেমন হয়? তাদের চারজনের তোলা ছবিগুলি এখন থেকে সেখানেই আপলোড দেওয়া হবে। শুধু তাই নয়, তারা প্রতিনিয়ত যেই ওয়েডিং বা ইভেন্টের ছবি তুলছেন সেগুলোও তো আপলোড দেওয়া যায়। আর এতে করে সাধারণ মানুষও দেখতে পারবে কেমন ছবি তোলে এই গ্রুপটি। ব্যস, যেই চিন্তা সেই কাজ। সেই রাতেই খুলে ফেলা ড্রীম উইভারের ফেসবুক পেজ। প্রতিনিয়ত নিত্য নতুন আঙ্গিকে তোলা ছবি দিয়ে ভরপুর হতে হতে সেই পেজটির ফলোয়ার এখন সাড়ে আট লাখ ছুই ছুই। লাইক সংখ্যাও কাছাকাছি।

শুরুর দিকে সকলেই ছিলেন ছাত্র। থাকা হত আইইউটির হলগুলিতে। তখন ঠিক অফিশিয়াল পদ্ধতি অনুসরণ করে ক্লায়েন্ট ডিলিংস হত না। তারপর ’১২ এর শেষে যখন জোবায়ের শুভ ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া শেষ করে বের হয়ে উত্তরার ১০ নং সেক্টরে আরও দুই বন্ধুর সাথে বাসা নিয়ে উঠলেন। ততদিনে বেশ কিছু ইভেন্টও আসা শুরু করেছে। মুসিবত হল, ক্লায়েন্টদের সাথে কথা বলার জন্য কিংবা এডভান্স নেবার জন্য দরকার পড়ে একটা অফিসের। সেই থেকেই ভাবনা শুরু। অফিস নিতে হবে। কিন্তু মূলধন নেই। নিরুপায় হয়ে সেই ভাড়া নেওয়া বাসার লিভিং রুমে করা হল ড্রীম উইভারের ছোট্ট অফিস। নাভানা থেকে আনা হল একটা বড় টেবিল, চেয়ার আর ফ্রেমে বাধিয়ে সুন্দর করে টানিয়ে রাখা হল তাদের তোলা বেশ কয়েকটি ছবি। পরবর্তীতে ক্লায়েন্টের চাপ বাড়ার সাথে সাথে অফিস বড় করার প্রয়োজন পড়ে। ততদিনে নাফিস আর ইমরানও বের হয়েছেন। তারা সহ থাকার মত সেক্টর ৯তে খোঁজ পাওয়া গেল ডুপ্লেক্স বাসাটির, ড্রীম উইভারের বর্তমান অফিসটির। ব্যাচেলর ভাড়া, আবার অফিস, ফটোগ্রাফি স্টুডিও, নানা ধরনের লোকজন আসবে এমন সব বাঁধা পেরিয়ে অতঃপর ঠিকানা হয় ড্রীম উইভারের বর্তমান অফিসের – উত্তরা, সেক্টর ৯, রোড নং ১, বাসা নং – ২৩!

মোটামুটি প্রথম এক বছর ড্রীম উইভারের সকল কাজ হাতে কলমেই চলত। ইভেন্টের চাপ বাড়ার সাথে সাথে যোবায়ের শুভর মাথায় কাজ করতে থাকল, এই যে এত ক্লায়েন্ট তাদের, একটা পূর্ণাঙ্গ সফটওয়্যার এবং ওয়েবসাইট বানিয়ে নিলে ক্লায়েন্টদেরও যেমন সুবিধা, ড্রীম উইভারেরও সুবিধা। কেননা এতে করে, সম্পূর্ণ ‘অটোমেটেড’ পদ্ধতিতে চালনা করা সম্ভব হবে তাদের ক্লায়েন্ট ডিলিংস এর কার্যক্রম। ২০১৩ এর শেষের দিকে ঢাকার বাইরে ঠাকুরগাওতে ড্রীম উইভার যায় একটি ইভেন্ট করার জন্য। ইভেন্ট ছিল বহুজাতিক এক প্রতিষ্ঠানের আইটিতে চাকুরীরত নুর ভাই এর। শুভ তার কাছেই শুনতে চান বিস্তারিত। সফটওয়ার বানাতে যেয়ে করণীয় কী কী? পরবর্তীতে সেই ভাইই একটা ডেমো মডেল বানিয়ে দেন। সেখান থেকে ধীরে ধীরে প্রয়োজনের সাপেক্ষে আধুনিকীকরণ হতে হতে বর্তমানে ড্রীম উইভারের সফটওয়্যার সবথেকে অত্যাধুনিক একটি সফটওয়্যারে পরিণত হয়েছে।

ওরা চারজন

ড্রীম উইভারের চার কর্ণধার যোবায়ের হোসেন শুভ, নাফিস ফুয়াদ শুভ, ইমরান শাহেদ এবং মাজহারুল ইসলাম রাফি। চারজনের মধ্যে সবথেকে বড় মিল চারজনেই আইইউটির ছাত্র, চারজনেই প্রকৌশলী। চারজনের অতীত ইতিহাস সম্বন্ধে জানা গেল বিস্তারিত।

বিশ্ববিদ্যালয় ঢুকেই প্রথম বর্ষের শেষে বন্ধুরা সবাই মিলে ঘুরতে গিয়েছিলেন কক্সবাজার। ইনানী বিচে বন্ধুরা সবাই একসাথে লাফ দিবেন, সেই মুহুর্তটার ছবি তুলতে হবে। ক্যামেরা বলতে ছিল তৎকালীন সনি সাইবার শট ডিজিটাল ক্যামেরা। বন্ধুরা সবাই লাফও দেন, একেক জনের পর একেক জন চেষ্টাও করলেন কিন্তু মনমত সেই ছবি আর ওঠে না। একটা ছেলেই শুধুমাত্র সেই অসাধ্য কাজটা করতে পারল। সেই ছবি ঠাই পেল প্রত্যেক বন্ধুর ফেসবুক কভারে। সাথে ফটো কার্টেসী – যোবায়ের হোসেন শুভ। সেই থেকে ফটোগ্রাফার শুভ’র নামডাক।
যোবায়ের হোসেন শুভ, ড্রীম উইভারের প্রধান মুখ। ফটোগ্রাফি জগতে তার যাত্রাটা অনেক দিনের, অনেক বাঁধা পেরিয়ে। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনেই মূলত ছবি তোলার পূর্ণ সত্ত্বা প্রকাশিত হলেও তার পথচলাটা শুরু হয়েছিল সেই ছোট্টবেলায় কুমিল্লায় থাকা কালে। সেসময় তার বাবা শখ করে কিনে দিয়েছিলেন অটো রোলের ইয়াসিকা ক্যামেরা। তা দিয়েই ছোট্ট শুভ ঘুরে বেড়িয়েছেন কুমিল্লার রাস্তায় রাস্তায়, ছবি তুলে বেড়িয়েছেন সেই অটোরোলের ক্যামেরা দিয়েই।
২০১১ সালে বন্ধুদের দেখাদেখি ঝোঁক বাড়ে ডিএসএলআর এর প্রতি। কিন্তু বাসায় বললে কখনোই কিনে দিবে না। অগত্যা নিজের টিউশনি করে এবং গেমিং প্রোডাক্ট সেল করে জমানো টাকা দিয়ে কিনে ফেলেন শখের ডিএসএলআর, ডি৭০০০। সাথে ছিল ১৮-১০৫ লেন্স, ৩৫মিলিমিটার লেন্স এবং একটি ফ্ল্যাশ। শুধু ক্যামেরা কিনেই ক্ষান্ত ছিলেন না শুভ। প্রতিনিয়ত গুগল করে এবং ইউটিউব দেখে শিখেছেন সেই ক্যামেরার নিত্য নতুন ফাংশন এবং বিভিন্ন কাজ। ছবিও তোলা হত ক্যাম্পাসে এবং ক্যাম্পাসের বাইরে। বনানী ওভারব্রীজ থেকে তোলা একটি ছবি জায়গা করে নেয় ২০১১ এর আন্তর্জাতিকমানের আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় এক্সিবিশন ‘ব্রেক দ্য সার্কেল’ এ। ২০১২ এর এক্সিবিশনেও জায়গা পায় শুভ’র তোলা ছবি।
যখন শেষ বর্ষে তখন শুভ’র ইচ্ছা হল ব্যাচের সব বন্ধুর বিভিন্ন পোজে একক ছবি তুলে একটা এ্যালবাম করবেন। নিজের ক্রিয়েটেভিটি দিয়ে বিভিন্ন আঙ্গিকে তোলা সেই ছবিগুলি দেখেই সবাই বুঝে গেল – এই ছেলেটা আলাদা। তার মধ্যে ফটোগ্রাফির আলাদা একটা প্রতিভা আছে। সেখান থেকেই বন্ধু তাঞ্জিব এর বোনের বিয়েতে ছবি তোলার জন্য অফার পান শুভ। পরিচিত সিনিয়র, বড় ভাই থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরাও একে একে সবাই তাদের বিভিন্ন কাজের ছবি তোলার জন্য খুঁজতে থাকেন এই শুভকে।
বিয়ের ছবি তুলতে গেলে একা সম্পূর্ণটা কভার করা কঠিন হয়ে যায়। তাই সাথে নিয়ে যেতেন অন্য কাউকে। কখনো বা বন্ধু, কখনো বা জুনিয়র। সেখান থেকেই আলাদা করে নজর কাড়েন রাফি, নাফিস এবং ইমরান। আর তারপর সবাইকে নিয়ে প্লাটফর্ম করে শুরু করেন নিজের কোম্পানি – ড্রীম উইভার।
যোবায়ের হোসেন শুভ’র ছোটবেলা কেটেছে কুমিল্লা শহরে। কুমিল্লা জিলা স্কুল থেকে মাধ্যমিক শেষ করে পাড়ি জমান ঢাকার নটরডেম কলেজে। স্নাতক জীবনে পড়াশুনা করেছেন যন্ত্রকৌশল নিয়ে।

নানা বাড়ি বেড়াতে যেয়ে গাছের ডালে শুয়ে থাকা একটা বিড়ালের ছবি তুলেছিলেন। বিড়ালটা চুপচাপ বসে, গোল গোল চোখ, বড় বড় করে তাকিয়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ে তখন কেবল তার যাত্রা শুরু হয়েছে। সেই ছবি এনে দেখিয়েছিলেন ফটোগ্রাফিক সোসাইটির বড় ভাইদের। অন্যান্য ছবিগুলোর ভিড়ে বাকিদের কাছে নজর কাড়ে এই ছবিটি। এক বড় ভাই ছবিটির ক্যাপশন দিয়ে দিলেন ‘ম্যাজিস্টিক লুক’। মজার ব্যাপার হল সেই ছবিটিই আইইউটির ইন্ট্রা ইউনিভার্সিটি এক্সিবিশনে জায়গা করে নেয়। সেই থেকে অনুপ্রেরণা আর আত্মবিশ্বাস পাওয়া শুরু ছেলেটির। নাম তার নাফিস ফুয়াদ শুভ।
ছোটবেলায় একটা ফিল্মের ইয়াসিকা ক্যামেরা ছিল নাফিসদের বাসায়। সেটা নিয়েই মাঝে মধ্যে নাড়াচাড়া করতেন। কলেজে যখন ঢুকবেন তখন তার ছিল নোকিয়া এন৭০, তৎকালীন মাত্র ২ মেগাপিক্সেল বিশিষ্ট ক্যামেরা নিয়ে মাঝে মধ্যে টুকটাক ছবি তুলে বন্ধুদের মধ্যে ব্যাপক ভাব মারতেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকে মা’র কাছে বায়না করেছিলেন একটা ডিজিটাল ক্যামেরার। নিজের জমানো টাকার সাথে মা’র কাছ থেকে কিছু টাকা নিয়ে কিনেছিলেন ডিজিটাল ক্যামেরা। সেই ক্যামেরা দিয়েই পরবর্তীতে তোলা হত ছবি। ম্যাজিস্টিক লুক সেই ডিজিটাল ক্যামেরা দিয়েই তোলা।
আইইউটিতে ঢুকার পর থেকেই ছবির প্রতি ভালবাসা আরও বাড়তে থাকে। ফেসবুক, ফ্লিকারে সবার এত সুন্দর সুন্দর ছবি দেখে সে মুগ্ধ, কিন্তু সামান্য এই ডিজিটাল ক্যামেরা দিয়ে তো আর তা তোলা সম্ভব না। এবার একটা ডিএসএলআর ক্যামেরা কিনতে হবে। কাছের বন্ধু ইমরান শাহেদ ততদিনে একটা ক্যামেরা কিনেছে। সেটা দেখে আগ্রহ আরও বেড়ে গেল। বাসায় বলে আর নিজের জমানো বৃত্তির টাকা দিয়ে ২০১২ এর জানুয়ারিতে কিনে ফেলেন শখের ডিএসএলআর। এরপর আর থেমে থাকা নয়। আইইউটি ফটোগ্রাফিক সোসাইটিতে ওঠাবসা ছিলই। সেখান থেকে যোবায়ের শুভর সাথে পরিচিত হয়ে আস্তে ধীরে গড়ে তোলা এই ড্রীম উইভার। এই প্রতিষ্ঠানের সকলের কাছে তিনি এনএফএস ভাই নামেই পরিচিত।
নাফিস ফুয়াদের ছোটবেলা কেটেছে খুলনাতে। ছিলেন খুলনা জিলা স্কুলে। স্কুল জীবন শেষে ঢাকায় এসে উচ্চমাধ্যমিকের পড়াশুনা করেন রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ থেকে। ২০০৯ সালে উচ্চমাধ্যমিক দেবার পর বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে পড়াশুনা করেছেন যন্ত্রকৌশল নিয়ে।

কলেজে থাকা অবস্থাতে নিজের ঈদে জমানো ছ’হাজার টাকা এবং বাসা থেকে কিছু টাকা দিয়ে কিনেছিলেন সনি কে৭৫০আই মোবাইল। সেই মোবাইলের ক্যামেরাতে দারুণ সব ছবি তোলা যেত। সাথে সেই ছবি গুলো নিয়ে করা যেত বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষাও। যেটা করতে করতেই ছবি তোলার প্রতি আগ্রহ দিন দিন বাড়তে থাকে ইমরানের। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ে যেয়ে ঢুকলেন আইইউটিতে। সেখানে ফটোগ্রাফিক সোসাইটিতে যাওয়া আসার সুবাদে দিনকে দিন তার এই আগ্রহের পালে যোগ হয় বাড়তি হাওয়া।
দ্বিতীয় বর্ষে থাকা অবস্থাতে নিজের জমানো ত্রিশ হাজার টাকা এবং বাসা থেকে কিছু টাকা নিয়ে কিনে ফেলেন ডিএসএলআর, নাইকন ডি ৯০। সাথে ১৮-১০৫ লেন্স। এরপর থেকে ছবি নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষার কাজ তার আরও বেড়ে যায়। প্রায় রাতেই অন্যান্য সিনিয়র এবং বন্ধুরা যাদের ডিএসএলআর ছিল, তাদের সবাইকে নিয়ে বের হয়ে যেতেন আইইউটির ভিতরেই, ফটোওয়াক এ। সোডিয়াম লাইটের আলোতে রাতের বেলা ছবি তুলতে তুলতেই একসময় নিজের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায় ইমরানের।
তারপর বন্ধু নাফিসও ক্যামেরা কিনলে, পরিচিত হওয়া যোবায়ের শুভ’র সাথে। গড়ে তোলা হয় ড্রীম উইভার।
ইমরানের ছোটবেলা কেটেছে চট্টগ্রামে। পড়াশুনা করেছেন ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল এবং চট্টগ্রাম কলেজে। ২০০৯ তে উচ্চমাধ্যমিক শেষে স্নাতক জীবনে পড়াশুনার জন্য বেছে নিয়েছিলেন যন্ত্রকৌশল।

এই চারজনের মধ্যে কনিষ্ঠতম সদস্য মাজহারুল ইসলাম রাফি। তবে সবার ছোট হলেও রাফির ফটোগ্রাফি জীবনের গল্পটা কিন্তু কম ছোট নয়। মাধ্যমিক পরীক্ষার পর যখন মাস তিনেকের ছুটি ছিল সেই সময় বাসা থেকে তাকে কিনে দেওয়া হয় ক্যাননের কমলা রঙের একটি ডিজিটাল ক্যামেরা। সেই ক্যামেরা দিয়েই শখের বশে করতেন ফটোগ্রাফী।
২০১০ এ উচ্চমাধ্যমিক শেষে ভর্তি হলেন আইইউটিতে। সেখানে একদিন তার তোলা কিছু ছবি নিয়ে তিনি যান বড়ভাইদের কাছে। উদ্দেশ্য, আসন্ন ‘ব্রেক দ্য সার্কেল’ এ তার কোন ছবি এক্সিবিশনের জন্য দেওয়া যায় কিনা। এর মধ্যে এক বড় ভাই দারুনভাবে তার স্ট্রীটে তোলা এক ছবি এডিট করে এক্সিবিশনের জন্য জমা দিতে বলেন। সবাইকে অবাক করে দিয়ে প্রথম বর্ষে পড়া এই ছেলেটির ছবি জায়গা করে নেয় এক্সিবিশনে।
২০১১ তে বন্ধুরা মিলে গিয়েছিলেন সিলেট ট্যুর এ। সেখানে যেয়ে লাউয়াছড়াতে নিজের সেই ডিজিটাল ক্যামেরা দিয়ে রেললাইনের একটা ছবি তুলেছিলেন। বাংলাদেশের অন্যতম মর্যাদাকর এক্সিবিশন টিটিএল (থ্রু দ্য লেন্স) এ আইইউটির একমাত্র ছবি হিসেবে ২০১২ সালের এক্সিবিশনে জায়গা করে নেয় সেই ছবি। তারপর থেকেই ক্যাম্পাসে সিনিয়রদের চোখে পড়েন রাফি।
যে ডিজিটাল ক্যামেরাতেই এত ভাল ছবি তুলতে পারে, ডিএসএলআর হলে নিশ্চয় আরও ভাল ছবি তুলতে পারবে। বড় ভাইদের প্রেরণায় বাসায়্য আবদার করে বসেন একটা ডিএসএলআর এর। নিজের জমানো উচ্চমাধ্যমিকের বৃত্তির টাকা এবং উদ্ভাসে ক্লাস নেবার সুবাদে জমানো টাকার সাথে বাসা থেকে কিছু টাকা নিয়ে ’১১ তে কিনে ফেলেন নিজের প্রথম ডিএসএলআর ক্যামেরা, নাইকন ডি৫০০০।
ক্যামেরা কেনার পরেই ২০১২তে জানুয়ারির ১৮ তারিখে যোবায়ের শুভ তাকে নিয়ে যান ফোর সিজনস এ, একটা ওয়েডিং শ্যুটে। তখন ছিল না নরমাল একটা ফ্ল্যাশও। সেই অবস্থায় নিজের ইচ্ছামত বেশ কিছু ছবি তোলেন রাফি। শুভকেও মুগ্ধ করে ফেলেন তার তোলা ছবি দিয়ে।
দুর্ভাগ্য পরদিন আর এক বন্ধুকে ক্যামেরা কিনে দেবার উদ্দেশ্যে বসুন্ধরা সিটিতে যেয়ে হারিয়ে বসেন নিজের কেনা ডিএসএলআরটা। রাফির অগ্রগতিতে বড় একটা ধাক্কা ছিল সেটা। অতঃপর উপায় না দেখে নিজের আইইউটি থেকে পাওয়া সমস্ত বৃত্তির টাকা তুলে কিনে ফেলেন আর একটি ডিএসএলআর, ক্যানন ৫৫০ডি। এর পর পরই মার্চের কোন এক রাতে যোবায়ের শুভ’র ফোন – ‘আমরা একটা ফটোগ্রাফি দল করব, তুই থাকবি কি থাকবি না?’ শুভ ভাই ফোন দিয়েছেন, দ্বিতীয় চিন্তা করার অবকাশ নেই। চোখ বন্ধ করে রাজি হয়ে যান। ফেসবুকে প্রথম দিকে তার ছদ্মনাম ‘রাফ রাফি’ ছিল বলেই কিনা ড্রীম উইভারের সকলে তাকে ডাকেন সেই ‘রাফ রাফি’ নামেই।
রাফির ছোটবেলা কেটেছে চট্টগ্রামে। মাধ্যমিক দিয়েছেন চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল থেকে এবং উচ্চমাধ্যমিক মুহসীন কলেজ থেকে। স্নাতক জীবনে পড়াশুনা করেছেন কম্পিউটার কৌশল নিয়ে।